ব্লাড গ্রুপ কি ? স্বামী স্ত্রীর ব্লাডের গ্রুপ এক হলে কি কি সমস্যা তৈরী হয় এবং স্বামী এবং স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ সম্পর্কিত সতর্কবার্তা

ব্লাড গ্রুপ কি ?

লোহিত রক্তকণিকার রাজমা মেমব্রেনে বিভিন্ন অ্যান্টিজেনের উপস্থিতির ভিত্তিতে রক্তের শ্রেণীবিন্যাসকে ব্লাড গ্রুপ বলে।

রক্তের গ্রুপ আবিষ্কার করেন কে ?

ব্লাড গ্রুপ কি তা ১৯০১ সালে অস্ট্রিয়ায় জন্ম গ্রহণকারী আমেরিকান জীববিজ্ঞানী কার্ল ল্যান্ডস্টেইনার (Karl Landstar ) ১৯০১ সালে মানুষের রক্তের শ্রেণীবিন্যাস করেন। রক্তকণিকায় কতকগুলো অ্যান্টিজেন (Antigen]-এর উপস্থিতি ও অনুপস্থিতির উপর নির্ভর করে বিজ্ঞানী ল্যান্ডস্টেইনার মানুষের রক্তের যে শ্রেণীবিন্যাস করেন, তা AB০ ব্লাড গ্রুপ বা সংক্ষেপে ব্লাড গ্রুপ (Blood group) নামে পরিচিত। অনেক সময় একে ল্যান্ডস্টেইনার-এর ব্লাড গ্রপ (Landsteine Blood group) বলে। 

মানুষের রক্তের কয়টি ?

মানুষের রক্তের গ্রুপ চারটি । যথা,A, B, AB ও ০ ।

সর্বজনীন গ্রহীতা রক্তের গ্রুপ কোনটি ?

  • সর্বজনীন গ্রহীতা রক্তের গ্রুপ: AB ব্লাড গ্রুপের গ্রহীতাকে A, B, AB ও ০ অর্থাৎ যে কোনো গ্রুপের রক্ত দেয়া যায়। এ কারণে AB গ্রুপের রক্তকে সার্বজনীন গ্রহীতা (Universal receipient) বলে

সর্বজন দাতা রক্তের গ্রুপ কোনটি ?

  • সর্বজন দাতা রক্তের গ্রুপ: 0 গ্রুপের রক্ত যে কেউ নিতে পারে, তার জন্য কোনো পরীক্ষার দরকার হয় না অর্থাৎ 0 গ্রুপের রক্তকে সার্বজনীন দাতা (Universal donor) বলে

স্বামী স্ত্রীর ব্লাডের গ্রুপ এক হলে কি কি সমস্যা তৈরী হয় এবং স্বামী এবং স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ সম্পর্কিত সতর্কবার্তা:

Blood Group মায়ের রক্তের গ্রুপ গর্ভের সন্তানের ওপর কখনো কখনো প্রভাব ফেলতে পারে। সকল সন্তান ধারণক্ষম মহিলারই রক্তের গ্রুপ জানা দরকার । পূর্বে জানা না থাকলেও গর্ভাবস্থায় অবশ্যই রক্তের গ্রুপ জানতে হবে । 

ওভুলেশন কি ? ওভুলেশন কিভাবে হয় ? ডিম্বাণু কত দিন জীবিত থাকে|গর্ভধারণের জন্য সবচাইতে উপযুক্ত সময় বোঝার উপায়? জেনে নিতে পারেন।

স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ এক হলে কি কি সমস্যা হয় বিয়ের আগে অবশ্যই জেনে নিন ?

স্বামী স্ত্রীর ব্লাড গ্রুপ এক হলে  কি কি সমস্যা হয়:

  • মায়ের রক্তের গ্রুপ যদি পজেটিভ (Positive) হন, তবে কোন অসুবিধা হয় না। 
  • কিন্তু মায়ের রক্তের গ্রুপ যদি নেগেটিভ (Negative) হয়, আর বাবা পজেটিভ হয়, তবে বাচ্চার সমস্যা হতে পারে। সহজ কথায় মায়ের রক্তের নেগেটিভ (Negative) হয়, তাহলেই সমস্যা সৃষ্টি হয়। বাবার রক্তের গ্রুপ যদি নেগেটিভ বা পজিটিভ হলে কোন সমস্যা তৈরী হয় না।
  • যদি মা নেগেটিভ আর বাবা পজেটিভ হয়, তবে এর ফলে উভৃত সমস্যা এক ধরনের ইনজেকশন দ্বারা প্রতিরোধ করা যায়। 
  • স্বামী পজিটিভ এমন নেগেটিভ গ্রুপের কোন মহিলার যদি কখনো বাচ্চা নষ্ট হয়, এমআর (MR) বা ডিএন্ডসি (D & C) করানো হয়, তাহলেও এই ইনজেকশন নিতে হবে, অন্যথায় পরবর্তী বাচ্চার সমস্যা হতে পারে ।
  • গর্ভবতী মায়ের এ ধরনের কোন ইতিহাস থাকলে প্রথমেই তা চিকিৎসককে জানাতে হবে।
  • অন্যদিকে মা পজেটিভ আর বাবা নেগেটিভ হলে কোন সমস্যাই হয় না। 

নিজে নিজে অনলাইনে জিপিএফ হিসাব দেখার নিয়ম ২০২২

   

স্বামী স্ত্রীর ব্লাড গ্রুপ একই হলে

  • তেমনি যদি স্বামী-স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ একই হয়, তাতেও কোন সমস্যা হয় না।

ওভুলেশন কি ? ওভুলেশন কিভাবে হয় ? ডিম্বাণু কত দিন জীবিত থাকে|গর্ভধারণের জন্য সবচাইতে উপযুক্ত সময়

রিলেটেড ট্যাগঃ রক্তের গ্রুপ কয়টি,রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী বিবাহ, সবচেয়ে ভালো রক্তের গ্রুপ কোনটি, স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ, স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ এক হলে, কোন রক্তের গ্রুপ সবচেয়ে কম পাওয়া যায়, সর্বজনীন দাতা রক্তের গ্রুপ কোনটি, স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ কেমন হওয়া উচিত, স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ এক হলে কি কি সমস্যা হয় বিয়ের আগে অবশ্যই জেনে নিন, সর্বজনীন গ্রহীতা রক্তের গ্রুপ কোনটি, কোন রক্তের গ্রুপ সবচেয়ে বেশি, স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ এক হলে কি বাচ্চা হয়, স্বামী স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ এক হলে কি সমস্যা হয়, সার্বজনীন গ্রহীতা রক্তের গ্রুপ, সন্তান জন্মদানে রক্তের গ্রুপের গুরুত্ব, রক্তের গ্রুপ আবিষ্কার করেন কে, স্বামী এবং স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ সম্পর্কিত সতর্কবার্তা

Leave a Reply