গর্ভাবস্থায় রক্তের চাপ বেড়ে যাওয়ার কারণ এবং গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ হলে কি হয় ? গর্ভাবস্থায় প্রেসার লো হলে করণীয় ?

Table of Contents

গর্ভাবস্থায় রক্তের চাপ বেড়ে যাওয়া ?

গর্ভাবস্থায় রক্তের চাপ বেড়ে যাওয়া :

গর্ভধারণের পূর্বে বা গর্ভাবস্থার প্রথমদিকে রক্তের চাপ স্বাভাবিক থাকলেও কারো কারো রক্তের চাপ গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় টাইমস্টারে বেড়ে যেতে পারে । এই বেড়ে যাওয়া রক্তচাপের সাথে যদি প্রস্রাবের সাথে এলবুমিন (এক ধরনের প্রোটিন) যায়, তবে এই অবস্থাকে প্রি-একলাম্পসিয়া (Pre-eclampsia) বলা হয়। এই প্রি-একলাম্পসিয়া বেড়ে গেলে এর সাথে শরীরে খিঁচুনী দেখা দিতে পারে । একবার একলাম্পসিয়া হলে মা ও তার গর্ভের সন্তানের জীবন বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যায় । তাই প্রি-একলাম্পসিয়া অবস্থায়ই এই রোগের সঠিক চিকিৎসা নিতে হয় । এর জন্য কখনও কখনও সন্তান পূর্ণতা (Maturity) অর্জনের পূর্বেই ডেলিভারি করিয়ে ফেলার প্রয়োজন হতে পারে ।

infertilityorg

infertility & Health tips এর আপডেট তথ্য পেতে google news” অনুসরণ করুন

গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ হলে কি সমস্যা হয় ?

গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ
গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ


নিয়মিত রক্তচাপ মেপে নিয়ন্ত্রণে না রাখলে নানা জটিলতা থেকে পারেঃ

  • মায়ের পা ফোলা
  • শরীরে জল জমা
  • মাথাব্যথা
  • চোখে ঝাপসা দেখা
  • শ্বাসকষ্ট
  • হার্ট ফেইলিউর
  • রক্তক্ষরণ
  • খিঁচুনি ইত্যাদি হতে পারে।
  • প্রি-একলাম্পসিয়া ও একলাম্পসিয়ার উল্লেখযোগ্য কারণ উচ্চ রক্তচাপ।
  • গর্ভস্থ শিশুর বৃদ্ধি ব্যাহত হতে পারে।

Read More: what is polycystic ovary syndrome (pcos) & types of pcos ? how to get rid of polycystic ovary syndrome cure naturally ?

গর্ভাবস্থায় হঠাৎ উচ্চ রক্তচাপের কারণ ?

  • ডায়াবেটিস
  • কিডনি রোগ
  • থাইরয়েডের সমস্যা থাকলে
  • অতিরিক্ত ওজন
  • পরিবারের যদি গর্ভাবস্থায় হাই প্রেসারের ইতিহাস থাকলে
  • মায়ের বয়স ২০ বছরের কম অথবা ৪০-এর বেশি  হাই প্রেসারের ঝুঁকি বেশি হয়।


অস্বাস্থ্যকর জীবনধারা গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপের কারণ হতে পারে। অতিরিক্ত ওজন এবং স্থুলতা উচ্চ রক্তচাপের উল্লেখ যোগ্য কারণ।

আরও জানুনঃ ওভুলেশন কি ? ওভুলেশন কিভাবে হয় ? ডিম্বাণু কত দিন জীবিত থাকে|গর্ভধারণের জন্য সবচাইতে উপযুক্ত সময় বোঝার উপায় ?

গর্ভাবস্থায় লো ব্লাড প্রেসার বা কম রক্তচাপ ?


হার্ট পাম্প করার সময় ধমনীর দেয়ালগুলিতে রক্ত বাহিত হওয়ার সময় যে শক্তি প্রয়োগ করে তাকে ব্লাড প্রেসার বা রক্তচাপ পরিমাণে মাপা হয়। নিম্ন রক্তচাপ তার সাথে গর্ভাবস্থার সম্পর্ক রয়েছে। এই টাইমে রক্ত সঞ্চালন ব্যবস্থার রক্তনালীগুলি আপনার দেহে হরমোনের পরিবর্তনের কারণে স্ফীত হয়ে যায়, যা নিম্ন রক্তচাপের কারণ থেকে পারে।

নিম্ন রক্তচাপ কি ?


যদি রক্তচাপ ৯০ এমএমএইচজি / ৬০ এমএমএইচজি বা তার চেয়ে কম প্রতিফলন করে তবে আপনার রক্তচাপ কম বলে বিবেচিত হয়। ১টি সাধারণ রক্তচাপ হল ১২০ এমএমএইচজি / ৮০ এমএমএইচজি।

আরও জানুন: পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম কি ? পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম লক্ষণ ?

গর্ভবতী মায়ের কখন রক্তচাপ কম থাকে ?


আপনার রক্তচাপ গর্ভাবস্থার শুরুর দিকে কম থাকে এবং দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের মধ্যবর্তী সময়ে এটা সর্বনিম্নে পৌঁছাতে পারে। নিয়মিত রক্তচাপ পরিমাপ গুরুত্বপূর্ণ, এগুলি আপনার তার সাথে আপনার শিশুর শরীরের সম্পর্ক রয়েছে। লো বিপি বা নিম্ন রক্তচাপ প্রধারণত সব গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে লক্ষ্য যায় এবং এটি গর্ভধারণের ২৪ সপ্তাহ কম   থাকতে পারে।


নিম্ন রক্তচাপের প্রকারগুলি সাধারণত দুই প্রকার ,যথাঃ

আরও জানুনঃ টেস্ট টিউব বেবি কি ? টেস্ট টিউব বেবি কিভাবে হয় ? এক্টোপিক প্রেগন্যান্সি কাকে বলে এবং এক্টোপিক প্রেগন্যান্সি কেন হয় ?

• দেহের অবস্থানগত নিম্ন রক্তচাপ


আপনার বসার বা ঘুমের অবস্থান থেকে আকস্মিক উঠে এলে আপনার রক্তচাপ সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য কম থাকতে পারে। এই অবস্থা, যা অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন হিসাবেও পরিচিত, দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকা বা শুয়ে থাকার ফল। হঠাৎ আপনার অবস্থান পরিবর্তন করার পরে রক্ত কিছুটা দেরিতে মস্তিষ্কে পৌঁছায়।

• সুপারিন হাইপোটেনশন


যদি আপনি চিৎ হয়ে বা পিঠের উপর ভর দিয়ে ঘুমাচ্ছেন বা বিশ্রাম নিচ্ছেন, তবে চাপটি ভেনের উপর এবং বিভিন্ন প্রধান রক্তনালীর ওপর চাপ দেওয়া হয়, যার ফলে রক্তচাপ কমে যায় যায়। এই হাইপোটেনশনটি প্রসারণকারী জরায়ুর কারণে ঘটে যার ফলে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে মাথা ঘোরা থেকে পারে।

আরও জানুনঃ মেয়েদের ডিম্বাণু বড় করার উপায় ? কি কি খাবার খেলে ডিম্বাণু বড় হয় ?

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণ কি কি?


গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণঃ

  • ১ম তিন মাসে বিভিন্ন হরমোনের পরিবর্তনের ফলে।
  • শরীরের পানি কমে ডিহাইড্রেশন এর ফলে রক্তচাপকে নিম্ন এবং মাথা ঘোরার রিজন হতে পারে।
  • জরায়ুর বৃদ্ধি রক্তনালীগুলির ওপর চাপ তৈরি করে ফলে নিম্ন রক্ত চাপ এর কারণ হতে পারে। আপনি যখন পিঠে ভর দিয়ে শুয়ে থাকেন, তখন বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় সুপারিন হাইপোটেনশনের এক্সপেরিয়েন্স হয়।
  • অবস্থানগত হাইপোটেনশন পায়ে রক্ত জমা হওয়ার কারণেও ঘটে যা মস্তিষ্কে রক্ত প্রবাহকে প্রভাবিত করে। এটা প্রধারনত বসার অবস্থান বা শোওয়ার অবস্থান হতে উঠে যাওয়ার সময় ঘটে।
  • অ্যানিমিয়া এবং হাইপোগ্লাইসেমিয়া (এমন ১টি শর্ত যা রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়) গর্ভাবস্থায় কম রক্তচাপ হওয়ারও রিজন হতে পারে।

আরও জানুনঃ গর্ভাবস্থায় সহবাস ? গর্ভাবস্থায় সহবাস করলে কি ক্ষতি হয় ? গর্ভাবস্থায় সহবাস করার উপকারিতা ?

  • অন্যান্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি১২ এবং ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতি। ভ্রূণ মা থেকে পুষ্টি গ্রহণ করে। অতএব, ভিটামিন বা ফলিক অ্যাসিড কম গ্রহণ করলে মা রক্তাল্পতায় আক্রান্ত হন, কারণ এই ঘাটতি রক্ত সঞ্চালনকে কমিয়ে দিতে পারে ।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের লক্ষণ ও উপসর্গ ?

  • নিম্ন রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরা থেকে পারে তার সাথে জ্ঞানহীন হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে।
  • শোওয়া ও বসার সময় হালকা মাথা ঘোরা এবং দৃষ্টি আধার হয়ে যাওয়া ।
  • রক্তাল্পতার কারণে অতিরিক্ত তেষ্টা দেখা যায় ।
  • তল পেটে তীব্র ব্যাথা হলেও রক্তচাপ হ্রাস পায় যায়। এটি একটি অ্যাক্টোপিক গর্ভাবস্থার জন্য হতে পারে, যা প্রচণ্ড বিপজ্জনক হতে পারে।
  • ত্বক ফ্যাকাশে, খসখসে এবং ঠান্ডা ত্বক।

আরও জানুনঃ গর্ভের সন্তান ছেলে না মেয়ে সহজ ঘরোয়া পরীক্ষায় জেনে নিন ? ছেলে হবে না মেয়ে হবে তা জানার উপায়?


গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য ঘরোয়া প্রতিকার ?

গর্ভাবস্থায় ঘরোয়া প্রদ্ধতি অনুসরণ করে দেখতে পারেনঃ


গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য লবণ পানি ?


গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য লবণ পানি সেবন করার জন্য রোগীদের জন্য প্রধানত উপদেশ দেওয়া হয়, কারণ লবণের মধ্যে থাকা সোডিয়াম রক্তচাপ বাড়ায়। তবে অধিক লবণ পানি খাবেন না, এটি আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। এক গ্লাস জলে শুধুমাত্র আধ চা-চামচ লবণ যোগ করুন এবং এটি পান করুন বা আপনি ওআরএসও খেতে পারেন।

আরও জানুনঃ প্রসব পরবর্তী বিপদ চিহ্ন বা প্রসব পরবর্তী জটিলতা ? নবজাতকের বিপদ চিহ্ন কয়টি ও কি কি?

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য কিশমিশ ?


কিশমিশ হল হাইপোটেনশনের চিকিত্সার ১টি ঐতিহ্যবাহী ও দুর্দান্ত উপায় ও সর্বোত্তম প্রতিকার। সারারাত পানিতে কিছু কিশমিশ ভিজিয়ে রাখুন এবং প্রভাতকালে খালি পেটে সেই পানি পান করুন। আপনি ভেজানো কিশমিশগুলিও খেয়ে নিন।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য তুলসী ?


তুলসীতে Vitamin C, magnesium, potassium and pantothenic acid জাতীয় পুষ্টি থাকে যা কম রক্তচাপের জন্য ভাল। এক চা চামচ মধু যোগ করতে পারেন তার সাথে খালি পেটে প্রতিদিন এটি গ্রহণ করতে পারেন। আপনার যদি খেতে সমস্যা না হয় তবে প্রতিদিন সকালে কেবল তুলসী পাতা খেতে পারেন।

Read more: Best food for vitamin d deficiency ?

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য বিটরুটের রস ?


আপনি প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ডেইলি এক কাপ বিটরুটের রস পান করতে পারেন।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য আদা ?


আদা নিম্ন ও হাই রক্তচাপের সাথে মোকাবিলা করার জন্য কার্যকর, কারণ আদায় জিঞ্জারল এবং জিঞ্জারোন জাতীয় রাসায়নিকে পূর্ণ, সঙ্গে নির্দিষ্ট যৌগ তার সাথে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা রক্তচাপের মাত্রা কমায়।

আরও জানুনঃ ভিটামিন ডি কি ? ভিটামিন ডি এর উপকারিতা ? ভিটামিন ডি এর অভাবে কি কি হয় ?

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য মৌরী ?


এটিতে পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, কপার, জিঙ্ক এবং ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে, যা আয়রন ও পটাশিয়ামের মাত্রা বাড়ায়, যা রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করার জন্য পারে।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য লেবুর রস ?



আর ১টি দারুণ ঘরোয়া প্রতিকার হল লেবুর রস, বিশেষত যদি ডিহাইড্রেশনের কারণে রক্তচাপ কম হয়। লেবুর রস শক্তি সরবরাহ এবং হজমের সহায়ক, একসাথে লিভারের কার্যকারিতা বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

আরও জানুনঃ অ্যামনিওটিক ফ্লুইড কি ? অ্যামনিওটিক ফ্লুইড এর কাজ কি ? গর্ভফুল কি ? গর্ভবতী কত দিন পর সন্তান ভূমিষ্ঠ হয় ?

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য টাটকা গাজরের রস ?


তাজা গাজরের রস রক্ত সঞ্চালন উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে এবং এজন্য রক্তচাপের মাত্রা বজায় রাখতে পারে। আপনি ডেইলি ভোরে মধুর সাথে তাজা গাজরের রস খেতে পারেন।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য বাদামের পেস্ট এবং দুধ ?


এটি সবচেয়ে জনপ্রিয় নির্ধারিত প্রতিকার। এই সংমিশ্রণটি অ্যাড্রিনালিন গ্রন্থিতে কাজ করার জন্য পারে যা রক্তচাপকে স্থিতিশীল করার জন্য পারে। সারারাত পাঁচ বা ছয়টি বাদাম ভিজিয়ে রাখুন, ত্বকে খোসা ছাড়ান তার সাথে মসৃণ পেস্টে পিষে নিন। ফুটন্ত দুধে বাদামের পেস্ট যুক্ত করে ভালো করে নাড়ুন। রক্তচাপের মাত্রা উন্নত করতে এক কাপ বাদামের দুধ পান করুন।

Read More: 14 Signs of Vitamin D Deficiency in Adults ?


এই ঘরোয়া প্রতিকার ছাড়াও রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে আপনার প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা উচিত। কোনো ঘরোয়া প্রতিকার বেছে নেওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সঙ্গে উপদেশ করা ভাল।


গর্ভাবস্থায় কম রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরার সঙ্গে মোকাবিলা করার টিপস ?

  • দীর্ঘ সময়ের জন্য দাঁড়াবেন না। সংক্ষিপ্ত বিরতি নিন এবং বসুন, বিশেষত কোনো রান্না, কাপড় কাচা বা ঘর পরিষ্কারের মতো কাজ করার সময়।
  • গরম জলে স্নান এড়িয়ে চলুন, কারণ গরম পানি রক্তনালীতে রক্তের প্রভাবকে এইরকম কমিয়ে দেয়।
  • আপনার মন সচল এবং সতেজ রাখতে সারা দিন রোজ অল্প অল্প করে পানি পান করে হাইড্রেটেড থাকুন।
  • ঢিলেঢালা বস্ত্র পরুন, যা আপনাকে সংকীর্ণের চেয়ে আরো অধিক মুক্ত মনে করায়। এটি মাথার ঘোরার অনুভূতি কমিয়ে আনতে সহায়তা করবে।
  • বাম পাশে ঘুরে থাকা অবস্থানে ঘুমান, কারণ এটা শিশুর রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে এবং মায়ের সুপাইন হাইপোটেনশন সিনড্রোমকে বাধা দেয়।

আরও জানুনঃ গর্ভাবস্থায় যে সব ভিটামিন খাওয়া যাবে না এবং কোন ভিটামিন খাওয়া যাবে ?

গর্ভাবস্থায় ওষুধ সেবন ?

যদি কোন মহিলা সন্তান নেওয়ার চিন্তা করেন বা তিনি মনে করেন যে, তিনি গর্ভবতী, তা হলে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ কোনো অবস্থাতেই গ্রহণ করা উচিত নয়। বিশেষ করে গর্ভকালীন সময়ের প্রথম তিন মাসে একথা বিশেষভাবে প্রযোজ্য। কারণ গর্ভকালীন সময়ের প্রথম তিন মাসের মধ্যেই সন্তানের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ গঠিত হয়ে থাকে । আর বিশেষ কিছু ওষুধ খেলে শিশুর অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের গঠনে নানাবিধ দোষত্রুটি দেখা দিতে পারে ।

শুধু গর্ভাবস্থায় কেন, যারা মা হতে চাচ্ছেন তারা মাসিকের দ্বিতীয়ার্ধেও ওষুধ সেবনের ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে । যৌক্তিক কোন কারণ ছাড়া এই সময়ে কোন ওষুধ সেবন না করাই ভালো । আপনি গর্ভাবস্থায় যখনই কোন ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হবেন, আপনার ডাক্তারকে সতর্ক করবেন যে, আপনি গর্ভবতী। প্রয়োজনে আপনি আপনার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন।

আরও জানুনঃ ইউরিক অ্যাসিড বেশী থাকলে আমে খাওয়ার অপকারিতা কি ? আম খেলে কি ইউরিক এসিড বেশি হয় ?

ডিসক্লেইমার: এখানে উপরোক্ত হেলথটিপস এবং পরামর্শগুলি অনুসরণ করার পূর্বে , ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিন।

রিলেটেড ট্যাগঃ গর্ভাবস্থায় রক্তের চাপ বেড়ে যাওয়া, গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ, গর্ভাবস্থায় প্রেসার লো হলে করণীয়, গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায়, প্রসব পরবর্তী উচ্চ রক্তচাপ, গর্ভাবস্থায় প্রেসার কত থাকা উচিত

Leave a Reply